Bangladeshi Entertainment Magazine

পরীমনি এবার জানালো বিস্তারিত তথ্য

0 213

আইকোনিক ফোকাস ডেস্কঃ অভিযোগ জানাতে চার দিন আগে চিত্রনায়িকা পরীমনি বনানী থানায় গিয়েছিলেন। তাকে অসুস্থ দেখে পু’লিশ সদস্যরা রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে নিয়ে যান বলে জানিয়েছেন বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুরে আজম মিয়া।

 

রোববার (১৩ জুন) দিবাগত রাত পৌনে ১২টার দিকে অভিনেত্রী পরীমনি মোবাইল ফোনে থা’নায় ও হাসপাতালে যাওয়ার বিষয় নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, গত চার দিন আগে ভোর বেলার দিকে আমি বনানী থানায় গিয়েছিলাম।

 

সেখানে এক দায়িত্বরত পু’লিশের সঙ্গে কথা বলি। আমার কথাবার্তা শুনে ওই পুলিশ কর্মক’র্তা আমাকে বলেন-আপনি শান্ত হোন, বাসায় যান, সকাল দশটায় ওসি সাহেব এলে বিষয়টি জানানো হবে।

 

পরে বনানী থানা পুলিশ তাকে নিরাপত্তা দিয়ে এভারকেয়ার হাসপাতালে নিয়ে যায়। তাকে বলা হয়-আপনি সুস্থ হলে থা’নায় আসবেন। কিন্তু তিনি আর যোগাযোগ করেননি, থানায়ও আসেননি।

 

ওসি আরও বলেন, সেদিন পু’লিশকে তিনি (পরীমনি) জানিয়েছিলেন তাকে জোর করে কিছু খাওয়ানো হয়েছে। রোববার (১৩ জুন) সন্ধ্যায় জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমনি তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাসের মাধ্যমে অভিযোগ করেন।

ফেসবুক পোস্টে তিনি তার জীবন নিয়ে শ’ঙ্কায় রয়েছেন বলেও জানান। ফেসবুক পেজে অ’ভিযোগ তুলে প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি খোলা চিঠি লেখেন পরীমনি। এরপর সাংবাদিকরা যোগাযোগ করলে তিনি তৎক্ষণাৎ তার নিজ বাসায় একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন।

 

সংবাদ সম্মেলনে পরীমনি বলেন, গত চারদিন ধরে একজন সাধারণ মেয়ে হিসেবে আমি দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি। কিন্তু কারো হেল্প পাইনি। সবাইকে বলেছি, আমি সুইসাইড করার মতো মেয়ে না। যদি আমি মরে যাই, মনে করবেন আমাকে মেরে ফেলা হয়েছে।

 

আর আপনাদের কাছে আমার অনুরোধ আপনারা আমাকে হত্যার বিচার করবেন।এর আগে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আলোচিত এই অভিনেত্রী জানান, নাসির ইউ. মাহমুদ নামে একজন তাকে নেশাজাতীয় কিছু খাইয়ে এ ঘটনা ঘটাতে চেষ্টা করেছিলেন।

 

পরীমনি বলেন, আমার কস্টিউম ডিজাইন করেন জিমি, আমাদের কাজের বাইরেও পারিবারিক সম্পর্ক রয়েছে। তার মাধ্যমে অমির সঙ্গে আমার পরিচয়। উনি বাসায় আসেন চারদিন আগে (ঘটনাটির দিন রাতে)। এর আগে সিনেমার ব্যাপারে মিটিংয়ের জন্য ডেট চাচ্ছিল কিন্তু আমি সময় দিতে পারছিলাম না।

আমার নানু কয়েকদিন আগে অসুস্থ ছিলেন সেটা আপনারা জানেন।  তিনি আরও বলেন, গত বুধবার রাত ১২টায় আমাকে বিরুলিয়ায় নাছির ইউ. মাহমুদের কাছে নিয়ে যায় অমি। সেসময় নাছির ইউ. মাহমুদ নিজেকে ঢাকা বোট ক্লাবের সভাপতি হিসেবে পরিচয় দেন।

 

সেখানে নাছির ইউ. মাহমুদ আমাকে ম’দ খেতে অফার করে। আমি রাজি না হলে আমাকে জোর করে মদ খাওয়ানোর চেষ্টা করে। একপর্যায়ে আমাকে চড় থাপ্পড় মারে।

 

এরপর সাংবাদিকদের সামনে নিজের জীবন নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন বলে জানান পরীমনি। একইসঙ্গে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। তাই এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন পরীমনি ।

Comments
Loading...