জাটকা ইলিশে সয়লাব নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ

বিপ্লব হাসান রূপগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার গাউছিয়া মাছের আড়ৎ এখন জাটকা ইলিশে সয়লাব। আমাদের দেশের জাতীয় মাছ ইলিশ, যা দেশের সম্পদ। ইলিশের জাটকা ধরা, পরিবহন, আমদানি, রপ্তানি নিষেধ থাকলেও মানছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে জনমতে।

অনেকেই বলেন, রহস্যজনক কারণে মৎস্য কর্মকর্তা নিরব ভূমিকায় থাকায় উপজেলার গাউছিয়া মাছের আড়ৎ ও উপজেলার বিভিন্ন এলাকার হাট-বাজারে অবাধে বিক্রি হচ্ছে ১০ ইঞ্জির নিচে সমপরিমাণের জাটকা ইলিশ। রবিবার (১২মে) সকাল ৬ টায় সংবাদচর্চা পত্রিকার সাংবাদিক বিপ্লব হাসান সরেজমিনে গাউছিয়া মাছের আড়তে ঘুরে দেখেন,একতা মৎস্য আড়ৎ,গাউছিয়া আবু হানিফ মৎস্য আড়ৎ, বিস্মিল্লাহ্ মৎস্য আড়ৎসহ আরও বিভিন্ন নামের আড়ৎ ঘুরে দেখা যায়, চঁন্দনা ও চাবিলা নাম দিয়ে জাটকা ইলিশ বিক্রি করছে। আড়াইশ থেকে সাড়ে তিনশ টাকা কেজি দরে ক্রেতারাও জাটকা দেদারছে ক্রয় করছেন ।

বাজারে ৫০ গ্রাম ওজনের জাটকা থেকে শুরু করে ১ কেজি সাড়ে ৪‘শ গ্রাম সমপরিমাণ ও প্রায় ২ কেজি ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে। মাছ ব্যবসায়ীদের এক একজনের কাছে প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ কেজি জাটকা মাছ রয়েছে। তারা বলেন, জাটকা মাছ ধরা বন্ধ করলে জেলেরা কি খাবে? আর আমরাও কি করে সংসার চালাবো বলুন? সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জাটকা বিক্রয় করছে আড়ৎধাররা। তাহলে এখানে পরিষ্কারভাবে দেখা যাচ্ছে, দেশের সম্পদ কিভাবে নষ্ট করছে অসাধু ব্যবসায়ী। এ সম্পদ আপনার আমার সবার।

উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ইলিশের এই ছোট পোনা যার নাম জাটকা এখন চাপিলা ও চঁন্দনা ইলিশ বলে বিক্রয় করছে দেদারছে। এক মাছ বিক্রেতা আকাশ জানিয়েছেন, নদী থেকে এসব জাটকা জেলেরা ধরে এনে তা আড়তে বিক্রি করছেন, এরপর পাইকারি বাজার হয়ে খুচরা বাজারে আনা হচ্ছে। কিন্তু নদীতে এই মাছ ধরা বা শিকার করা থেকে জেলেদের যদি বিরত রাখা যেত তাহলে এই ইলিশ সম্পদ ধ্বংস হতো না।

স্থানীয় ব্যক্তিরা আরও জানান, জাটকা রক্ষায় মৎস্য বিভাগের কার্যকরী পদক্ষেপ না থাকায় গাউছিয়া মাছের আড়ৎ এখন জাটকা মাছে সয়লাব। এ বিষয়ে রূপগঞ্জ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সমির কুমার বাসাক বলেন, আমরা চেষ্টা করছি জাটকা আমদানি রপ্তানি বন্ধ করার জন্য। পহেলা নভেম্বর থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ১০ ইঞ্চির নিচে যেকোনো জাটকা ইলিশ ধরা সরকারিভাবে নিষেধ এবং পরিবহণ করা, ক্রয় – বিক্রয় করা নিষেধ। এমনকি মজুদকরাও অপরাধ। অচিরেই অভিযান পরিচালনা করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *